HomeGroupsTalkZeitgeist
This site uses cookies to deliver our services, improve performance, for analytics, and (if not signed in) for advertising. By using LibraryThing you acknowledge that you have read and understand our Terms of Service and Privacy Policy. Your use of the site and services is subject to these policies and terms.
Hide this

Results from Google Books

Click on a thumbnail to go to Google Books.

The Hidden Reality: Parallel Universes and…
Loading...

The Hidden Reality: Parallel Universes and the Deep Laws of the Cosmos

by Brian Greene

MembersReviewsPopularityAverage ratingMentions
1,055327,963 (3.9)18
  1. 00
    Why Does the World Exist? An Existential Detective Story by Jim Holt (CGlanovsky)
    CGlanovsky: Touching on similar concepts, including Nozick's "Ultimate Multiverse" (there's isn't something rather than nothing, there's both).
Loading...

Sign up for LibraryThing to find out whether you'll like this book.

No current Talk conversations about this book.

» See also 18 mentions

English (30)  Swedish (1)  German (1)  All (32)
Showing 1-5 of 30 (next | show all)
A little bit mind-blowing. Greene is very good at making complex scientific principles accessible, although some of his examples are a little cutesy for my taste. ( )
  GaylaBassham | May 27, 2018 |
Controversial but still incredibly thought prevoking book on various ways parallel universes could be realized. ( )
  Boekuuh | Nov 21, 2017 |
নৃতত্ত্ববিদ্যা মতে মানব সভ্যতার জন্ম ২০,০০০-৪৪,০০০ বছর আগে। এই সময়টার ভেতর মানুষ খুব ধীরে ধীরে নতুন নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন করেছে। মানুষ আগুন জ্বালাতে শিখেছে, হাড় দিয়ে হাতিয়ার তৈরী করেছে, পশুর সাথে হুটোপাটি না করেও স্রেফ বিষ দিয়েই যে অনেক কম ক্লেশে শিকার করে ফেলা যায় তা জেনেছে, পাথুরে গুহার গায়ে আঁচড় দিয়ে ছবি এঁকেছে...। এভাবে এক সময় মানুষ জায়গার পরিমাপের নিখুঁত হিসেব করতেও শিখে গেলো। ভূখণ্ডের কতখানি নিয়ে একটি সাম্রাজ্য বা দেশ হয় তার আন্দাজ পেলো। এত এত সব বিদ্যা একটু একটু করে অর্জন করে এই বড়জোর হাজার পাঁচেক বছর আগে মাত্র মানুষ জানতে পেলো পৃথিবী সসীম এবং এর আকার গোল (কারণ সমুদ্রে দাঁড়িয়ে অনেক দূরে বিপরীত দিক থেকে আগুয়ান জাহাজ এর দিকে তাকালে জাহাজের সবচেয়ে উঁচু অংশ মাস্তুলটিই প্রথমে দেখা যায়, তারপরে একটু একটু করে পুরো জাহাজটা চোখে পড়ে। পৃথিবী যদি সমান হতো তাহলে প্রথমবারেই জাহাজের পুরোটা দেখে ফেলা যেতো!)। পৃথিবীর আকার সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে যাবার অনেক বছর পর মানুষ জানতে পারলো পৃথিবীই শেষ নয়, সৌরজগৎ আছে, যেখানে কিনা পৃথিবীর মতো এমন আরো খান দশেক গ্রহ ঘুরপাক খাচ্ছে। এরপর আবিষ্কৃত হল সৌরজগৎ আসলে নিতান্তই শিশু। তারা বাস করে গ্যালাক্সির ভেতর। আমাদের গ্যালাক্সি মিল্কিওয়ে (আকাশ গঙ্গা) তার পেটের ভেতর প্রায় ১০০,০০০,০০০,০০০ নক্ষত্র নিয়ে বসে আছে (প্রায় সব নক্ষত্রেরই নিজের নিজের সৌরজগৎ আছে। অতএব, হিসেব মতে, মিল্কিওয়েতে মোটামুটি ১০০,০০০,০০০,০০০ বা এর কাছাকাছি সংখ্যক সৌরজগৎ আছে)। এমন গ্যালাক্সিও আছে প্রায় এই একই সংখ্যক-ই। এই নিয়েই ইউনিভার্স বা সৃষ্টিজগৎ। এ যেন অনেকটা রাশান মাত্রিওশকা পুতুল, কিংবা ৫ বাটির লাঞ্চ বক্স সেট, প্রত্যেকটির ভেতরই এক সাইজ ছোটটি গুঁজে দেয়া।



কিন্তু সবচেয়ে বড় শেষ বাটিটা কোথায়? ইউনিভার্স কি নিজেই এক সাইজ ছোট কোন বাটির ভেতর আছে? ধর্মগ্রন্থে বর্ণিত স্বর্গ-নরক, দোজখ-বেহেশত কিংবা রূপকথার গল্পের ভালহাল্লা-অজল্যান্ড​ যদি থেকে থাকে, সেগুলো কি এই ইউনিভার্স এর ভেতরেই? নাকি অন্য কোন সৃষ্টিজগৎ সেটি? আধুনিক বিজ্ঞানের অসাধারণ প্রসারের কারণে আজ আমরা সৌরজগৎ, গ্যালাক্সি ইত্যাদির সমন্বয়ে গঠিত ইউনিভার্সের পুরো চিত্রটির অনেকখানি ‘দেখে’ ফেলতে পারি, অন্য কোন ইউনিভার্স এর সম্ভাবনা নিয়ে ভাবতে পারি। তবে প্যারালাল ইউনিভার্স বা অল্টারনেট রিয়ালিটি নিয়ে মানুষ হাজার হাজার বছর আগেই চিন্তা করে গেছে। প্লেটোর দর্শনে এই সম্ভাবনার কথা এসেছে বারবার। এসেছে আধুনিক সাইন্স ফিকশনের অন্যতম জনক এইচ জি ওয়েলস এর লেখায়ও। আমার সবচেয়ে প্রিয় চলচ্চিত্রগুলোর মাঝে অন্যতম প্রধান দুটি হলো ‘দ্যা উইজার্ড অফ অজ’ (১৯৩৯) ও ‘ইট’স আ ওয়ান্ডারফুল লাইফ’ (১৯৪৬)। দুটি ছবিরই থিম অল্টারনেট রিয়ালিটি। মার্ভেল-ডিসি কমিক্স এর সুপারহিরোরা অহরহ এক বাস্তবতা থেকে অন্য বাস্তবতায় ভ্রমণ করছে দুষ্টের দমনে। এই ইউনিভার্স এর ভালো ব্যাটম্যান অন্য এক ইউনিভার্স এর মন্দ ব্যাটম্যান এর ভয়ঙ্কর কোন প্ল্যান নস্যাৎ করে দিচ্ছে। অল্টারনেট রিয়ালিটির অভিজ্ঞতা হয়েছে ১৩ বছরের হ্যারি পটারেরও। ধর্মগ্রন্থ থেকে শুরু করে দর্শনের বই, সাইন্স ফিকশন থেকে কমিক্স জগত – সবখানেই প্যারালাল ইউনিভার্স এর রাজত্ব। তবে কমিক্স বা ফিকশন মানুষের কল্পনা প্রসূত। আসলেই কি ভিন্ন এমন কোন বাস্তবতা আছে যেখানে আরেকজন আমি ঠিক এই লেখাটিই কি-বোর্ডের একই অক্ষর গুলো একই সময়ে চেপে চেপে লিখছে আর “ওইদিকের আমি’র” কথা ভাবছে? গণিত ও থিওরেটিক্যাল ফিজিক্স বলছে এমন টা আসলেই হতে পারে! প্যারালাল ইউনিভার্সের অস্তিত্ব ও তাদের সম্ভাবনা নিয়ে পশ্চিমা বিশ্বের অসংখ্য পদার্থবিদ ও স্ট্রিং থিওরিস্টরা কাজ করে যাচ্ছেন। কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ব্রায়ান গ্রিন এঁদেরই একজন। যে সম্ভাবনাময় বাস্তবতাগুলো আমাদের জগতের সাথে সমান্তরাল ভাবে বয়ে যাচ্ছে এবং (অবশ্যই) যাদের আমরা চোখে দেখতে পারিনা, গ্রিন তাঁর বই ‘দ্যা হিডেন রিয়ালিটিঃ প্যারালাল ইউনিভার্সেস অ্যান্ড দ্যা ডিপ ল’জ অফ দ্যা কসমস’ এ সেই লুকিয়ে থাকা বাস্তবতাগুলোর খোঁজ করেছেন। ফিজিক্সে হাতেখড়ি যাঁদের নেই, ধরিয়ে দিতে দেয়েছেন তাঁদের হাতে চিন্তার কিছু সুতো।

প্যারালাল ইউনিভার্সের অস্তিত্ব নিয়ে ব্রায়ান গ্রিন এর যুক্তি প্রদর্শনের আগে সম্ভাবনার অন্য একটা গল্প উপক্রমণিকা হিসেবে বলি। তারপর মূল পর্ব! ১০ বন্ধু ম্যাট্রিক পাশ দেবার পর উদযাপন করতে রেস্টুরেন্টে খেতে গেলো। কিন্তু রেস্টুরেন্টের টেবিলে কে কার পাশে বসে খাবে তা নিয়ে তাদের মাঝে ঝগড়া শুরু হয়ে গেলো। একজন প্রস্তাব করছে জন্মমাস ক্রম অনুযায়ী বসা যাক, আরেকজন প্রস্তাব করছে উচ্চতার ক্রম হিসেবে বসলে ভালো হয়। কেউই মনস্থির করতে পারছেনা, রেস্টুরেন্ট ম্যানেজারও টেবিলে খাওয়া সার্ভ করতে পারছেননা। শেষে ম্যানেজার তাদের কাছে গিয়ে প্রস্তাব করলেন, আজকে যে যেভাবে বসেছেন সেভাবেই বসে যান, আর একটা কাগজে বসার ক্রমটা টুকে নিয়ে যান। কাল এসে আবার অন্য ভাবে বসবেন। এভাবে প্রতিদিন নতুন নতুন অর্ডারে বসে ১০ জনে যত রকম ভাবে বসা সম্ভব তা শেষ করতে হবে। যেদিন শেষ হয়ে যাবে, ম্যানেজার সেদিন বিনা খরচায় তাদের ইচ্ছেমতো খাওয়াবেন। প্রবাবিলিটি অ্যান্ড স্ট্যাটিস্টিক্স কিংবা পার্মুটেশন-কম্বিনেশন​ এর সাথে যাঁরা পরিচিত তাঁরা ভেতরের ‘ক্যাচ’টা জানেন। গণিতে ফ্যাক্টোরিয়াল (একে ‘!’ দ্বারা প্রকাশ করা হয়) বলে একটি বিষয় আছে যা নির্দেশ করে একটি ঘটনাকে কতভাবে ঘটানো সম্ভব। ৩ টি সংখ্যাকে (ধরুন ৭, ৮, ৯) ৩! অর্থ্যাৎ ৩x২x১ = ৬ টি অর্ডারে সাজানো সম্ভব (৭.৮.৯, ৭.৯.৮, ৮.৭.৯, ৮.৯.৭, ৯.৭.৮, ৯.৮.৭) । এর পর আবার সাজাতে গেলে এই ৬টির কোন একটির পুনরাবৃত্তি ঘটবে। অতএব সেই ১০ জন ছাত্রের প্রতিদিন নতুন অর্ডারে বসে খেতে গেলে ১০! = ১০x৯x৮x৭x৬x৫x৪x৩x২x১ = ৩,৬২৮,৮০০ দিন = ৯,৯৪১ বছরের কিছু বেশী সময় লাগবে! তাদের প্রতিশ্রুত সেই ফ্রি খাওয়া আর পাওয়া হবেনা কখনো। প্যারালাল ইউনিভার্স সম্পর্কে ব্রায়ান গ্রিনের যুক্তিও ঠিক এটিই। আমাদের ইউনিভার্স হয় অসীম নয়তো সসীম। যদি সসীম হয়, অর্থাৎ বালুকণা, নক্ষত্র, নক্ষত্রের রং, তাদের রাসায়নিক গঠন ইত্যাদির প্রত্যেকটির সংখ্যা যদি কোথাও গিয়ে শেষ হয়, যা পরিমাপ করা যায়, তাহলে পার্মুটেশন কম্বিনেশনের যুক্তিমতে তাদের নিশ্চয়ই ভিন্ন ভিন্ন অর্ডারে সাজানো সম্ভব! একজন মানুষ অসংখ্য ইলেক্ট্রন-প্রোটন-কোয়ার্ক​ এর সমন্বয়ে গঠিত। তার চেহারা, বর্ন, চিন্তার প্রকৃতি, কন্ঠস্বর ইত্যাদি কেমন হবে তার সবই নির্ভর করে কিভাবে তার শরীরের সাব-অ্যাটমিক পার্টিকেলগুলো একে অন্যের সাথে ক্রিয়া করছে। পৃথিবীতে ৭০০ কোটি মানুষ আছে, আমাদের সবার প্রকৃতি হয়তো এক কিন্তু তবুও আমরা প্রত্যেকেই আলাদা। কতভাবে সাব অ্যাটমিক পার্টিকেল গুলোকে আলাদা আলাদা ভাবে সাজালে ৭০০ কোটি মানুষ পাওয়া যেতে পারে? যে মানুষটি দেখতে প্রায় হুবহু আমার মতো, কন্ঠস্বর আমার মতো, চিন্তা একই রকম কিন্তু তবু এক নয়, তার সাথে হয়তো আমার মাত্র কয়েক কোটি কণার বেশকম। পার্থক্য নির্ধারণকারী এই অল্প কয়েক কোটি কণা যদি আমার শরীরে ঠিক যে কম্বিনেশনে ‘বন্টিত’ হয়েছে, সেভাবে তার শরীরেও বন্টিত হত,অর্থাৎ তার আর আমার মাঝে ১টি কণারও কোন পার্থক্য না থাকতো, তাহলে আমার পুনরাবৃত্তি ঘটতো! সে মানুষটি আরেকজন আমি-ই হতাম। আমাদের ইউনিভার্স যদি সসীম সংখ্যক কণার সমন্বয়ে গঠিত হয়, তাহলে সম্ভাব্য সব ভাবে তাদের সাজানোর পর কোন এক সময় আবার তাদের পুনরাবৃত্তি ঘটবে। এর অর্থ হয়তো ঠিক এমনই আরেকটি ইউনিভার্স খুব কাছেই কোথাও অথবা ভয়ানক দূরে কোথাও ঘাপটি মেরে আছে, যেখানে এখানের ঘটনাগুলোই ঘটে চলেছে, আয়নার প্রতিফলনের মতো। টিভির শোরুমে যেমন বিভিন্ন মডেলের অনেকগুলো টিভিতে একই চ্যানেল চালিয়ে রাখে, একই ঘটনা বেশ কয়েকটা টিভিতে একই সাথে ঘটতে দেখা যায় শোরুমের কাঁচের দরজার বাইরে থেকে, অনেকগুলো প্যারালাল ইউনিভার্স যদি আমরা ‘বাইরে’ থেকে কোনভাবে দেখি, এমনটাই কি দেখবো? পুনরাবৃত্তি ব্যতিরেকে অন্য যে সম্ভাবনাময় ইউনিভার্স গুলো আছে, সেগুলোর প্রত্যেকটাতেই ঐ কয়েক কোটি কণার এদিক ওদিক হয়ে যাবার কারণে আমি একেক জায়গায় একেক রকম। কোথাও হয়তো আমি ছ্যাঁচড়া চোর, কোথাও হয়তো রাজনীতিবিদ (‘সম্ভাবনাময়’ আমার এ দুটো সত্ত্বাই বোধ করি কণাগুলোর একই কম্বিনেশন দিয়ে পাওয়া সম্ভব!)।

মাল্টিভার্স বা অন্যান্য ইউনিভার্স গঠিত হবার ৯টি সম্ভাব্য উপায় বা মডেল আছে, অন্তত আজকের পদার্থবিজ্ঞান মতে। ব্রায়ান গ্রিন একেক অধ্যায়ে খুব গুছিয়ে ব্যখ্যা করেছেন সবগুলোই। কোথাও স্পেসটাইম একটি কম্বল বা বিছানার চাদরের মতো যেখানে একটু পর পর ফুলের নকশা প্রিন্ট করা আছে। স্পেস্টাইম বিছানার চাদরের মতো হলে (এবং অসীমভাবে বিস্তৃত হলে) ইউনিভার্স হবে নকশার সেই শোভাবর্ধনকারী ফুলগুলো। কোন মডেল বলে ইউনিভার্স হল পাঁউরুটির একটি স্লাইস। এমন অনেক গুলো স্লাইস (অর্থাৎ ইউনিভার্স) নিয়ে বড় একটি 'মেমব্রেন' বা সংক্ষেপে ‘ব্রেইন’। এই মডেল থেকেই ‘এম থিওরী’ উদ্ভাবিত হয়েছে। কোন মডেল বলে দুটি পাঁউরুটি’র স্লাইস বা দুটি ইউনিভার্স এর সংঘর্ষের ফলে নতুন ইউনিভার্স তৈরী হয়। কোন থিওরী বলে আমরা সবাই আসলে হলোগ্রাম, বাস্তব নই! আলোর সামনে আপনি হাত নাচালে দেয়ালে যে ছায়া পড়ে তা হলাম আমরা। অন্য কোথাও কেউ সুতো নাড়াচ্ছে তাই আমরা নড়ছি, আমাদের কাজগুলো আমাদের ইচ্ছেপ্রসূত নয়! প্লেটো এমনকি এই সম্ভাবনার কথাও ভেবে গেছেন। কোন মডেল বলে আমরা হলাম কম্পিউটার সিমুলেশন। খুব শক্তিশালী কোন কম্পিউটার কোথাও খুব শক্তিশালী কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ দিয়ে আমাদের তৈরী করেছে। আমরা সেই প্রোগ্রামার কে কোন দিন দেখতে পারবো কিনা তা নির্ভর করছে সেই প্রোগ্রামার আমাদের সেই ক্ষমতা দিয়ে প্রোগ্রাম করেছেন কিনা! এ ধরণের চিন্তা আপনাকে সৃষ্টিকর্তার দিকে নাকি প্রকৃতির দিকে ধাবিত করাবে সেটি আপনার ব্যাপার তবে উভয় ক্ষেত্রেই চিন্তাগুলো আপনাকে বিনয়ী করবে নিশ্চিত। এত বড় সৃষ্টিজগতে আমাদের সম্ভবত সরাসরি কোন ভূমিকা নেই। পিঁপড়াদের দলের কোন বিশেষ একটি দলপতির ভূমিকা আমরা কখনো আমাদের ইতিহাসের বইতে লিখে রাখিনা, কিন্তু পিঁপড়ারা কি আমাদের জীবনে কোনভাবে ভূমিকা রাখছেনা? ব্যাক্টেরিয়াদের আমরা চোখেই দেখতে পাইনা অথচ ভালো-মন্দ দুদিকেই তাদের কত অবদান আমাদের জীবনে! মহাবিশ্বেরও শেষ আছে। একদিন সব নক্ষত্রের আলো ফুরিয়ে যাবে, ধ্বংস হয়ে যাবে এর প্রতিটি কণাও। আমাদের এত এত কার্যকলাপ, এত গবেষণা, আবেগ, শিল্প, সাহিত্য, ভালোবাসার ইতিহাস এগুলো সবই ফুস করে একদিন হারিয়ে যাবে? কোথাও কোন রেকর্ড থাকবেনা? পিঁপড়াদের সেই দলপতির মত অবস্থা হবে আমাদের যার অস্তিত্বকে আমরা পাত্তাও দেইনি? কেন যেন মনে হয় যত ক্ষুদ্রই হই না কেন আমরা, যে বিশাল মহাবিশ্ব আমাদের তার বুকে স্থান দিয়েছে, পালন করছে, আমরা তার চোখ এড়িয়ে যাবোনা। কোথাও আমাদের ছবি ঠিকই তোলা হয়ে রইলো। ইউনিভার্স তার ব্যাক্টেরিয়াদের ঠিকঠিক গুণে গুণে রাখে!
( )
  Shaker07 | May 18, 2017 |
Despite the detailed explanations a lot of this went over my head. probably a better book for someone more grounded in physics than I am. ( )
  SChant | Mar 29, 2017 |
" Take the math seriously " ( )
  Baku-X | Jan 10, 2017 |
Showing 1-5 of 30 (next | show all)
no reviews | add a review
You must log in to edit Common Knowledge data.
For more help see the Common Knowledge help page.
Series (with order)
Canonical title
Original title
Alternative titles
Original publication date
People/Characters
Important places
Important events
Related movies
Awards and honors
Epigraph
Dedication
To Alec and Sophia
First words
If, when I was growing up, my room had been adorned with only a single mirror, my childhood daydreams might have been very different.
Quotations
Last words
(Click to show. Warning: May contain spoilers.)
Disambiguation notice
Publisher's editors
Blurbers
Publisher series
Original language

References to this work on external resources.

Wikipedia in English (3)

Book description
From the best-selling author of The Elegant Universe and The Fabric of the Cosmos comes his most expansive and accessible book to date—a book that takes on the grandest question: Is ours the only universe?

There was a time when “universe” meant all there is. Everything. Yet, in recent years discoveries in physics and cosmology have led a number of scientists to conclude that our universe may be one among many. With crystal-clear prose and inspired use of analogy, Brian Greene shows how a range of different “multiverse” proposals emerges from theories developed to explain the most refined observations of both subatomic particles and the dark depths of space: a multiverse in which you have an infinite number of doppelgängers, each reading this sentence in a distant universe; a multiverse comprising a vast ocean of bubble universes, of which ours is but one; a multiverse that endlessly cycles through time, or one that might be hovering millimeters away yet remains invisible; another in which every possibility allowed by quantum physics is brought to life. Or, perhaps strangest of all, a multiverse made purely of math.

Greene, one of our foremost physicists and science writers, takes us on a captivating exploration of these parallel worlds and reveals how much of reality’s true nature may be deeply hidden within them. And, with his unrivaled ability to make the most challenging of material accessible and entertaining, Greene tackles the core question: How can fundamental science progress if great swaths of reality lie beyond our reach?

Sparked by Greene’s trademark wit and precision, The Hidden Reality is at once a far-reaching survey of cutting-edge physics and a remarkable journey to the very edge of reality—a journey grounded firmly in science and limited only by our imagination.

---------------------------------------------------------------------------------
L'autore dei bestseller L'universo elegante e La trama del cosmo affronta in questo libro la domanda delle domande: il nostro è l'unico universo? Un tempo, la parola universo significava tutto ciò che esiste. Ogni cosa. Ma negli ultimi anni le scoperte della fisica e della cosmologia hanno portato un certo numero di scienziati a concludere che il nostro universo potrebbe essere uno dei molti esistenti. Con una prosa cristallina e un uso ispirato dell'analogia, Brian Greene illustra il ventaglio delle proposte di «multiverso » che emergono da teorie sviluppate per spiegare le sofisticate osservazioni delle particelle subatomiche e delle oscure profondità dello spazio: un multiverso in cui chi sta leggendo questa frase ha un numero infinito di doppi che leggono la stessa frase in universi distanti; un multiverso che comprende un vasto oceano di universi-bolla, dei quali il nostro non è che uno; un multiverso che nel corso del tempo attraversa lo stesso ciclo all'infinito, un altro che forse è sospeso a pochi millimetri da noi e tuttavia rimane invisibile, un altro ancora in cui ogni possibilità permessa dalla fisica quantistica prende vita. Da ultimo un multiverso, forse il piú strano di tutti, fatto esclusivamente di matematica.
Greene, uno dei piú importanti fisici e scrittori di scienza, ci guida in un'avvincente esplorazione di questi mondi paralleli, che rivela quanta parte della vera natura della realtà potrebbe essere nascosta al loro interno. Con la sua impareggiabile capacità di rendere comprensibili e gradevoli gli argomenti piú impegnativi, affronta la domanda essenziale: come può progredire la scienza se vaste regioni della realtà sono inaccessibili?
Anche grazie all'arguzia e alla precisione caratteristiche di Greene, La realtà nascosta è al contempo una rassegna di ampia portata della fisica d'avanguardia e un viaggio straordinario al confine stesso della realtà - un viaggio basato saldamente sulla scienza e limitato soltanto dalla nostra immaginazione.
(piopas)
Haiku summary

Amazon.com Amazon.com Review (ISBN 0307265633, Hardcover)

Amazon Best Books of the Month, January 2011: Take any of physics' major theories of the fundamental nature of the universe, extrapolate its math to the logical extreme, and you get some version of a (so far unobservable) parallel universe. And who better to navigate these hypothetical versions of the "multiverse" than Brian Greene? Normally an unflinching apologist for string theory, the bestselling author of The Elegant Universe and The Fabric of the Cosmos here treats all viable alternate realities to a laudably fair shake. For a book exploring the most far-reaching implications of bleeding-edge mathematics, The Hidden Reality is surprisingly light on math, written as it is "for a broad audience … its only prerequisite the will to persevere." Such perseverance pays off with a motley cast of potential universes featuring doppelgängers, strings, branes, quantum probabilities, holographs, and simulated worlds. The result is that rare accomplishment in science writing for a popular audience: a volume that explains the science and its consequences while stimulating the imagination of even the uninitiated.

Oliver Sacks on The Hidden Reality

Oliver Sacks was born in London and educated in London, Oxford, California, and New York. He is professor of neurology and psychiatry at Columbia University, and Columbia's first University Artist. He is the author of many books, including Awakenings, The Man Who Mistook His Wife for a Hat, and Musicophilia. His newest book, The Mind's Eye, was published in October, 2010.

Brian Greene is not only a profound cosmological thinker--a pioneer of string theory--but a writer of exceptional clarity and charm. His books--The Elegant Universe and The Fabric of the Cosmos among them--take one ever deeper into a universe stranger and more wonderful than anyone could have conceived a generation ago. The Hidden Reality takes us deeper still, and it has a special personal quality and warmth that is evident from the opening of the book, when Greene recollects how, as a boy, he was fascinated by the multiple reflections in parallel mirrors. He has never lost this childlike wonder at the world of physics, but he brings it now to examining theories of multiple universes, of the continual birth of universes, starting long before our own. . . and destined to continue, perhaps, to the end of time.

In the 1930s, as a boy myself, I read The Mysterious Universe by James Jeans. Jeans was, like Greene, a brilliant theoretical astronomer and equally mesmerizing writer. I thought Jeans's book was the most exciting, revelatory book I had ever read, and now, seventy years later, I feel the same excitement reading Brian Greene's new book, where every chapter opens level after level of previously unimaginable, mind-expanding realities.

(retrieved from Amazon Thu, 12 Mar 2015 18:08:10 -0400)

(see all 5 descriptions)

"The Hidden Reality" reveals how major developments in different branches of fundamental theoretical physics -- relativistic, quantum, cosmological, unified, computational -- have all led us to consider one or another variety of parallel universe.

» see all 5 descriptions

Quick Links

Popular covers

Rating

Average: (3.9)
0.5 1
1 1
1.5
2 5
2.5 2
3 27
3.5 9
4 63
4.5 2
5 35

Penguin Australia

An edition of this book was published by Penguin Australia.

» Publisher information page

Is this you?

Become a LibraryThing Author.

 

About | Contact | Privacy/Terms | Help/FAQs | Blog | Store | APIs | TinyCat | Legacy Libraries | Early Reviewers | Common Knowledge | 127,268,548 books! | Top bar: Always visible